লিভারপুলের আনন্দে আনন্দিত জার্মানরাও

জার্মান ফুটবলের দুঃসময় চলছে এখন, বিশ্বকাপ থেকে চ্যাম্পিয়নস লিগ সর্বত্র। চ্যাম্পিয়নস লিগে জার্মানির সেরা দল বায়ার্ন মিউনিখ আর ডর্টমুন্ড দ্বিতীয় রাউন্ডেই ছিটকে পড়েছে। তবে একজন জার্মান আছেন, যিনি ইউরোপীয় বনেদি চ্যাম্পিয়নস ফুটবল লিগের ফাইনালে পৌঁছে গেছেন—ইয়ুর্গেন ক্লপ। চ্যাম্পিয়নস ফুটবল লিগের ফাইনালে পৌঁছে যাওয়া দল লিভারপুল দলের ফুটবল কোচ।

ফুটবলে মাঝেমধ্যে রূপকথার মতো কিছু ঘটনা ঘটে। বিশ্বসেরা বার্সেলোনার কাছে লিভারপুল প্রথম লেগে ৩-০তে হেরে, দ্বিতীয় লেগে বার্সেলোনাকে ৪-০ গোলে পরাজিত করা চাট্টিখানি কথা! ইয়ুর্গেন ক্লপের ফুটবল দল লিভারপুলের চ্যাম্পিয়নস ফুটবল লিগের সেমিফাইনাল ফুটবলকে নিয়ে জার্মানির ফুটবল অনুরাগীদের কৌতূহলের শেষ ছিল না। বিশ্বসেরা বার্সেলোনা আর জাদুকর মেসির খেলা সারা বিশ্বের ফুটবলমোদীদের জন্যই আকর্ষণীয়। সে অর্থে জার্মানির ফুটবল শিক্ষক ক্লপ জার্মানির বাইরে খুব বেশি জনপ্রিয় নন। সাপ্তাহিক ছুটির দিন না হলেও কাল স্থানীয় সময় রাত ৯টায় জার্মানির সর্বত্র লাইভ স্পোর্টস এরেনা বা বারে বড় পর্দায় খেলা দেখার জন্য প্রচুর জনসমাগম হয়েছিল। মাঝে মাঝে দাঁতে দাঁত ঘষা ও খ্যাপাটে ধরনের এই ইয়ুর্গেন ক্লপকে গতকাল সারাক্ষণ মাঠে ঠান্ডা হয়ে থাকার বিষয়টি অনেককে অবাক করেছে। হতে পারে এটা তাঁর ফুটবল অভিজ্ঞতার নতুন কৌশল। নিজেদের ক্লাব না থাকতে পারে, তবে ক্লপের সাফল্যে ভীষণ উচ্ছ্বসিত জার্মানরা। আজ বেশির ভাগ জার্মান পত্রিকা গুরুত্বের সঙ্গে ছেপেছে লিভারপুল কোচের সাফল্য।

জার্মানির স্টুটগার্টে জন্ম নেওয়া ৫২ বছরের ইয়ুর্গেন ক্লপ ১৯৯০ সাল থেকে জার্মান ফুটবল লিগ বা বুন্দেস লিগায় মাইনজ ফুটবল দলের একজন খেলোয়াড় ছিলেন। পরে ২০০১ সালে এই একই দলের কোচ নিযুক্ত হন। সাত বছর পর মাইনজ ফুটবল দল ছেড়ে ২০০৮ সালে ডর্টমুন্ড ফুটবল দলের কোচের দায়িত্ব নেন। ২০১১ ও ২০১২ সালে এই সফল ফুটবল কোচের কৃতিত্বে ডর্টমুন্ড ফুটবল দল জার্মান ফুটবল লিগে চ্যাম্পিয়ন হন। ২০১৩ সালে চ্যাম্পিয়নস ফুটবল লিগের ফাইনালে লন্ডনের ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে তার দল ডর্টমুন্ড অপর জার্মান ফাইনালিস্ট বায়ার্ন মিউনিখের কাছে ২-১ গোলে হারে। ক্লপ ইংল্যান্ডের লিভারপুল ফুটবল দলে যোগ দেন ২০১৫ সালে।

কাল চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালে ৯০ মিনিটে বার্সা বা মেসিদের বড় পরাজয়ে বিশ্বজুড়ে তাদের অগণিত ভক্ত স্তম্ভিত আর বিমূঢ় হয়েছেন। তবে হেসেছে অসম্ভবকে সম্ভব করা বুদ্ধি দিয়ে জেতা ফুটবল গুরু ইয়ুর্গেন ক্লপের লিভারপুলের সমর্থকেরা আর তাঁর স্বদেশি জার্মানরা। স্মরণীয় ফুটবল রাতের শেষে লিভারপুল স্টেডিয়ামে দলীয় সমর্থকদের সামনে দলীয় খেলোয়াড় ও সমর্থকদের সঙ্গে ইয়ুর্গেন ক্লপ গান গেয়েছেন, ‘ইউ উইল নেভার ওয়ার্ক এলোন।’ মাঝখানে লাল টি-শার্ট পরে দাঁড়িয়ে ছিল চোটে পড়া লিভারপুলের মোহামেদ সালাহ আর তাঁর টি-শার্টটিতে লেখা ছিল, ‘নেভার গিভ আপ।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *